তরুণ গবেষকদের সমৃদ্ধ করার উদ্যোগ
সাম্প্রতিক

তরুণ গবেষকদের সমৃদ্ধ করার উদ্যোগ

গবেষণাবিষয়ক প্রতিষ্ঠান ফ্রেইম নিচ্ছে তরুণ গবেষকদের সমৃদ্ধ করার উদ্যোগ। গবেষণা খাতে বাংলাদেশের শিক্ষার্থী এবং তরুণ গবেষকদের জন্য ফ্রেইম আয়োজন করেছে ‘কোয়ান্টেটেটিভ অ্যান্ড কোয়ালিটেটিভ রিসার্চ : ডিজাইন অ্যান্ড মেথডস’ শিরোনামে দুদিন মেয়াদের একটি কোর্সের।

এতে প্রশিক্ষক হিসেবে থাকছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের কয়েকজন শিক্ষক ও গবেষক। তরুণ গবেষকরা নিজেদের কাজে কোনভাবে অগ্রসর হবেন, কীভাবে সেটি পরিচালনা করবেন এবং এ বিষয়ে তাঁদের পদ্ধতিগত ধারণা কীভাবে স্বচ্ছ করে তুলবেন—তারই নির্দেশনা থাকবে এই কোর্সে। কোর্স সম্পন্ন করার পর অংশগ্রহণকারীদের সনদ দেওয়া হবে।

প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার জানান, বর্তমানে অধিকাংশ গবেষণায় নিরপেক্ষতার অভাব এবং এনজিওর রিপোর্ট লেখার সময় বস্তুনিষ্ঠতার ঘাটতি থাকে। এ ছাড়া রিসার্চ ডিজাইন নিয়ম মেনে করা হয় না। বিভিন্ন সময়ে এসব দুর্বল রিপোর্ট আর্থসামাজিক জরুরি বিষয়গুলোয় রেফারেন্স হিসেবে উঠে আসে। অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ গবেষণার ক্ষেত্রে অদক্ষ মাঠকর্মীর উপস্থিতি এবং অনুসন্ধিৎসু মনের অভাবের ফলে গবেষণা অসম্পূর্ণ থেকে যায়। সুষ্ঠু জ্ঞান ও চর্চার অভাবে গবেষণার খাত বরাবরই অবহেলিত থাকছে।

দুই দিনব্যাপী কোর্স চলবে আগামী ৩ থেকে ৪ জুন। কোর্স ফি চার হাজার টাকা। স্থান আলিয়ঁস ফ্রঁসেজ দে ঢাকা। রেজিস্ট্রেশন ও টাকা জমা দেওয়া যাবে ৩১ মে পর্যন্ত। কোর্স আউটলাইন এবং বিস্তারিত তথ্যের জন্য ০১৭৮১১৮২৭৪৩ এবং ০১৭৯৫২৭৯২১৪ নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে।
প্রফেশনাল কোর্স অন কোয়ালিটেটিভ এন্ড কোয়ানটিটেটিভ রিসার্চঃ ডিজাইন এন্ড মেথডস
logo-1আয়োজকঃ ফ্রেইম
স্থানঃ অলিয়ঁস ফ্রসেজ দে ঢাকা, ধানমণ্ডি।
প্রশিক্ষকঃ অধ্যাপক, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়  এবং
সিনিয়ার রিসার্চ ফেলো,আইসিডিডিআর, বি এবং জেমস পি গ্রান্ট স্কুল অফ পাবলিক হেলথ,  ইউনিভার্সিটি অফ আমস্টারডাম, নিউজিল্যান্ড ।
কোর্স ফিঃ ৪০০০ টাকা মাত্র
কোর্সের প্রকৃতি : সার্টিফিকেট কোর্স।
সময়ঃ ৩-৪ জুন , ২০১৬ , ০৯টা – ৫টা।
যোগাযোগ : ০১৭৮১১৮২৭৪৩, ০১৭৯৫২৭৯২১৪,
ই-মেইলঃ framelearn@gmail.com

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Comments

comments

রাশপ্রিন্ট

রাশপ্রিন্ট

এই ওয়েবম্যাগে প্রকাশিত পোস্টগুলোর সঙ্গে ব্যবহৃত প্রচ্ছদফলক/ব্যানার ও অন্যান্য গ্রাফিক চিত্রাবলি বিনা-অনুমতি রিপ্রিন্ট/পুনর্ব্যাবহার করার ক্ষেত্রে রাশপ্রিন্টের তরফে কোনোরূপ বাধা নাই; ঋণস্বীকার বা উৎসতথ্য উল্লেখের বিষয় একান্তভাবে ব্যবহারকারীর সৌজন্যবোধের ওপর ন্যস্ত। # সম্ভাব্য অবদায়ক, যারা রাশপ্রিন্টে লেখা পাঠাতে ইচ্ছুক, সকলের প্রতি সনির্বন্ধ ও সানুরোধ আহ্বান নির্দ্বিধায় লেখা পাঠানোর। প্রেরিত রচনার প্রাপ্তিস্বীকার এবং প্রকাশযোগ্যতা সংক্রান্ত তথ্য সর্বোচ্চ ছয়-সপ্তাহের মধ্যে লেখক/অবদায়ককে অবহিত করা হবে। লেখাপ্রেরক/লেখকদের জ্ঞাতার্থে জানানো যাচ্ছে যে, ফেসবুক ও ব্যক্তিগত ব্লগস্পেসে ছাপানো রচনা রাশপ্রিন্টে গৃহীত হলেও অন্য কোনো ওয়েবম্যাগে পূর্বপ্রকাশিত রচনা রাশপ্রিন্ট গ্রহণ করে না। পুনর্মুদ্রণের ক্ষেত্রে রাশপ্রিন্ট নিজস্ব অভিপ্রায় অনুযায়ী লেখা চয়ন ও প্রকাশনের প্রক্রিয়া অনুসরণ করে থাকে। # লেখা পাঠানোর প্রাক্কালে তৎসঙ্গে লেখকের ইমেইল অ্যাড্রেস, ফেসবুক লিঙ্ক এবং সম্ভব হলে সেলফোন নাম্বারের সংযুক্তি নিশ্চিত করুন। পরিশেষে উল্লেখ্য হলেও গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, লেখার সঙ্গে লেখকের ব্যক্তিগত/অভিপ্রেত তথ্য সম্বলিত পরিচয়সংক্ষেপ সংযুক্তকরণ। রাশপ্রিন্ট আপনার সর্বোত সহযোগ ও শুভানুধ্যানের প্রত্যাশী। # রাশপ্রিন্ট সংযোগ : raashprint@gmail.com / ahmedsayem@gmail.com :: রাশপ্রিন্ট ডট কম

লেখকের অন্যান্য পোস্ট

Tags: 

লেখকের অন্যান্য পোস্ট :

সাম্প্রতিক পোষ্ট

লেখকসূচি