নাম তার ব্রতচারী আন্দোলন ( ভিডিও )
সাম্প্রতিক

নাম তার ব্রতচারী আন্দোলন ( ভিডিও )

উনিশ শ’ ত্রিশের দশক, ব্রিটিশ শাসন। তখন থেকে বছর ত্রিশেক আগে বাঙলা বিভক্ত হলেও, তখন যুক্ত, রবীন্দ্রনাথ জীবিত। দেশে লাগলো এক প্রবল ঢেউ। নাম তার ব্রতচারী আন্দোলন। সিলেট জেলার কুশিয়ারা নদী-পারের বীরশ্রী গ্রামের ক্ষণজন্মা মহাপুরুষ গুরুসদয় দত্ত ১৯৩২ সালে এই আধ্যাত্মিক ও সামাজিক উন্নয়ন আন্দোলনের সূচনা করেন। ব্রিটিশ ভারতের নাগরিকদের মধ্যে দেশপ্রেম, জাতীয় চেতনা ও নাগরিকত্ববোধ তৈরী করা ছিলো এ আন্দোলনের মূল লক্ষ্য।

ব্রতচারী আন্দোলনে ভুক্তির জন্য প্রথমে তিনটি উক্তি স্বীকার করে নিতে হতো, উক্তিগুলো হলো:

আমি বাঙলাকে ভালবাসি।
আমি বাঙলার সেবা করবো।
আমি বাঙলা ব্রতচারী হবো।

ব্রতচারী আন্দোলনের মূল লক্ষ্য ছিলো বাঙ্গালী ব্রতচারীদেরকে জ্ঞান, শ্রম, সত্য, ঐক্য ও আনন্দের সাথে জীবনযাপনের পথপ্রদর্শন করা। ব্রতচারীদের সত্যনিষ্ঠা, সংযম, অধ্যবসায় ও আত্মনির্ভরতা ছিলো এ আন্দোলনের অন্যতম বৈশিষ্ট। ঐক্যবদ্ধভাবে লোকনৃত্য ও লোকসঙ্গীত চর্চার মাধ্যমে মানসিক ও আত্মিক বিকাশ লাভ ও দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করা ছিলো এ আন্দোলনের মূল উদ্দেশ্য। বিশ্ব মানব হওয়ার লক্ষ্যে শাম্বত বাঙ্গালী হওয়ার উদাত্ত্ব আহ্বান জানিয়ে এ আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা গুরুসদয় দত্ত লিখেনঃ

“ষোল আনা বাঙ্গালি হ’
বিশ্ব মানব হবি যদি
শাশ্বত বাঙ্গালি হ’ ”

বাঙলার নিজস্ব সংস্কৃতি, নিজস্ব শিল্পধারা, নিজস্ব কলা, নিজস্ব নৃত্য, নিজস্ব গীত, নিজস্ব ভাব, ছন্দ, ধারা ও রূপ- এমনকি বাঙলার পল্লীর ধুলিবালিকণা পর্যন্ত বাঙলার ব্রতচারীর কাছে পরম পবিত্র। বাঙলার ভূমি প্রেমের চেতনাকে প্রত্যেক বাঙালি বালক-বালিকা ও নর-নারীর প্রাণে জাগ্রত করে ব্রতচারী নাশ করতে পারে বর্তমান যুগের করাল সাম্প্রদায়িকতা রাক্ষসীকে। আর এই অনুচেষ্টায় সমান স্থান হিন্দু, মুসলমান, খৃষ্টান, বৌদ্ধ এবং আদিবাসীদের।

এ দুর্ভাগা দেশের দুঃখের তপস্যা কবে শেষ হবে জানিনা। তবে যেদিন বাংলাদেশ সবদিক দিয়ে নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারবে সেদিন তারুন্যে দীপ্ত, দেশপ্রেমে উজ্জীবিত, সাংস্কৃতিক প্রত্যয়ে বলিষ্ঠ, ব্রতের শক্তিতে বলীয়ান, আত্ম প্রত্যয়ে দেদীপ্যমান একদল সুয্যসৈনিক ব্রতচারীকেই হয়তো আমরা সামনে পাবো। আমরা আমাদের সম্পদ নিয়ে বেঁচে থাকবো। বেঁচে থাক আমার তাল, তমাল, নিম, অশ্বথ, বট। বেঁচে থাক আমার সোনালী ধানের ক্ষেত, সোনালী আঁশের পাট-ক্ষেত, নদী আর সুন্দরবন। বেঁচে থাক আমার খয়েরী হাঁস আর চালধোয়া হাত। বেঁচে থাক মেহনতি জনতা, বেঁচে থাক বাঙলাদেশ; জয় সোনার বাঙলা।

ব্রতাচারীর খুব ছোট একটা অংশ যা ‘নগরনাট’ পরিবেশন করে। পরিচালনায় থাকেন : অচ্যুত চক্রবর্তী বর্ষণ। নাটিকাটিতে অংশগ্রহণ করেন : বর্ষণ, রনি, হৃদয়, সপ্ত, প্রান্তর, জয়, আরিফ ও বিপ্র। আবহ সঙ্গীতঃ অরুপ,উজ্জল, তানভীর ও মিথিলা

Comments

comments

রাশপ্রিন্ট

রাশপ্রিন্ট

এই ওয়েবম্যাগে প্রকাশিত পোস্টগুলোর সঙ্গে ব্যবহৃত প্রচ্ছদফলক/ব্যানার ও অন্যান্য গ্রাফিক চিত্রাবলি বিনা-অনুমতি রিপ্রিন্ট/পুনর্ব্যাবহার করার ক্ষেত্রে রাশপ্রিন্টের তরফে কোনোরূপ বাধা নাই; ঋণস্বীকার বা উৎসতথ্য উল্লেখের বিষয় একান্তভাবে ব্যবহারকারীর সৌজন্যবোধের ওপর ন্যস্ত। # সম্ভাব্য অবদায়ক, যারা রাশপ্রিন্টে লেখা পাঠাতে ইচ্ছুক, সকলের প্রতি সনির্বন্ধ ও সানুরোধ আহ্বান নির্দ্বিধায় লেখা পাঠানোর। প্রেরিত রচনার প্রাপ্তিস্বীকার এবং প্রকাশযোগ্যতা সংক্রান্ত তথ্য সর্বোচ্চ ছয়-সপ্তাহের মধ্যে লেখক/অবদায়ককে অবহিত করা হবে। লেখাপ্রেরক/লেখকদের জ্ঞাতার্থে জানানো যাচ্ছে যে, ফেসবুক ও ব্যক্তিগত ব্লগস্পেসে ছাপানো রচনা রাশপ্রিন্টে গৃহীত হলেও অন্য কোনো ওয়েবম্যাগে পূর্বপ্রকাশিত রচনা রাশপ্রিন্ট গ্রহণ করে না। পুনর্মুদ্রণের ক্ষেত্রে রাশপ্রিন্ট নিজস্ব অভিপ্রায় অনুযায়ী লেখা চয়ন ও প্রকাশনের প্রক্রিয়া অনুসরণ করে থাকে। # লেখা পাঠানোর প্রাক্কালে তৎসঙ্গে লেখকের ইমেইল অ্যাড্রেস, ফেসবুক লিঙ্ক এবং সম্ভব হলে সেলফোন নাম্বারের সংযুক্তি নিশ্চিত করুন। পরিশেষে উল্লেখ্য হলেও গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, লেখার সঙ্গে লেখকের ব্যক্তিগত/অভিপ্রেত তথ্য সম্বলিত পরিচয়সংক্ষেপ সংযুক্তকরণ। রাশপ্রিন্ট আপনার সর্বোত সহযোগ ও শুভানুধ্যানের প্রত্যাশী। # রাশপ্রিন্ট সংযোগ : raashprint@gmail.com / ahmedsayem@gmail.com :: রাশপ্রিন্ট ডট কম

লেখকের অন্যান্য পোস্ট

Tags: , , , , , , , , , , , , , , ,

লেখকের অন্যান্য পোস্ট :

সাম্প্রতিক পোষ্ট

লেখকসূচি