সাম্প্রতিক

প্রিয় মেঘমঞ্জরি । ইলিয়াস কমল

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তুমি নিজেই যেখানে শীত
তবে আসতে কেন দ্বিধা!

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
সময়টা এমন, মাঝে মাঝে নিজেকেও বিশ্বাস করতে পারি না। কি করব বলো?

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
জ্বর হলে সবসময়ই শীতকাল থাকে।

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমাকে নিশ্চয়ই আমি একদিন শাদা জবার গাছ কিনে দেবো।
শীতকালে ফুটবে তো?

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
জানো নিশ্চয়ই
কারো চুলের ঘ্রাণ ছাতিমফুলের বাসনার চেয়ে মধুর।

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
পৃথিবী মাত্রই অনুভূতির জাদুঘর। রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজ, ধর্ম সবকিছুই অনুভূতির জন্য। অনুভূতি না থাকলে এসব কিছুই থাকত না।

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
এই নিম্নচাপ সম্বলিত রোমান্টিক বৃষ্টি অতিক্রম করে শীত আসতেছে
শীতকাল তোমার কেমন লাগে?

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তুমি না চাইলে নভেম্বরের বৃষ্টি তোমার কাছে যাবে না।

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তুমি কি জানো
বিষণ্নতা একদল গভীর কুয়াশার নাম?

১০

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
অশরীরচর্চা নামের বইটার উৎসর্গপাতায় কি তোমার নাম লিখা?

১১

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমাকে জানার জন্য নাম ধরে সার্চ দিই গুগলে
অক্ষরগুলো বোকা হরিণ হয়ে তাকিয়ে থাকে মুখের দিকে।

১২

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
এই নাও ভালোবাসা
করতলে রেখে দিও, শীত কেটে যাবে।

১৩

প্রিয় মেঘমঞ্জরি,
বলো তোমার হৃদয়ের জন্মদিন কবে?

১৪

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
পৃথিবীর সবাই স্বার্থপর। এমনকি বিগত প্রেমিকাও।
তাই বলে কি তোমাকে ভালোবাসব না?

১৫

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমাকে লেখা খোলাচিঠির মালিক কেবল তুমি একাই নও
পৃথিবীর সমস্ত প্রেমিকাও

১৬

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
মাঝে মাঝে পৃথিবী জবাফুলের মতো দুর্লভ।

১৭

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমার যখন আত্মহত্যা করতে ইচ্ছা হয়
তখন আমার সাথে প্রেম করতে এসো …

১৮

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমাদের ঈশ্বর আজ ঠিকানাহীন বালক হয়েছে
তাকে বলো বাড়ি ফেরার প্রয়োজন নেই আর।

১৯

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তুমি কি কৃষ্ণের বাড়ির ঠিকানা জানো?

২০

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
জানোই তো, নিজেকে সম্পাদনা করার চেয়ে কঠিন কিছু নাই!

২১

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমার অতিথিরা কেমন আছে?

২২

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমার ওখানেও বুঝি এখন অনেক রাত!
জানালা খুলে দাও, কথা দিচ্ছি পৃথিবী অন্ধকার মনে হবে না!

২৩

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তুমি কখনো রমনা পার্কের কুয়াশামাখা ভোর দেখেছ?

২৪

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তুমি কি জানো, ঢাকা শহরে কয়টা ভূতের গলি আছে?

২৫

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
ঢাকা শহরের কি পূর্বদিক আছে? না থাকলে এত পুবালি বাতাস কোত্থেকে আসে!

২৬

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমাকে অনায়াসেই বলা যেত আজ রাত ডেনভারের গান শুনে কাটিয়ে দেবো। কিন্তু তা করব না। ভাবছি জিজ্ঞেস করব, কে তুমি?

২৭

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
আমার আত্মহত্যাপ্রবণতার সাথে ক্রিকেটের কোনও সম্পর্ক নাই, কখনো ছিল না।

২৮

প্রিয় মেঘমঞ্জরি,
অযথা স্মৃতিকাতরতাকে আমি অসুখ মনে করি। তোমার কী মনে হয়?

২৯

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
এই যে এলোমেলো শীত-ডেকে-আনা বাতাস
এইসব তোমার জন্য
খোলা চুলে জানালায় দাঁড়িয়ে বাতাসকে শাসন করা
তোমাকে ছাড়া আর কাকে মানায়!

৩০

প্রিয় মেঘ, প্রিয় মঞ্জরি
প্রেম কি এক বিষণ্ণ বেদনার ওষুধ?

৩১

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
তোমার কাছে কিছুটা ছাতিমফুলের ঘ্রাণ পাঠাতে ইচ্ছে করছে
কীভাবে নেবে তুমি?

৩২

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
আর কী চাও তুমি?
আমাকে কি চাও?
বলো মেঘ বলো নিরন্তর হাওয়া!

৩৩

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
এখানে ধুলোঝড় ছিল,
আরও যেখানে যা হয় আর-কি
তোমার কি মন ভালো?

৩৪

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
বিষণ্নতাকে তুমি একটা অসুখ ভাবতে পারো,
যদি জানো কেউ সুখে থেকেও বিষণ্নতায় ভোগে।

৩৫

প্রিয় মেঘমঞ্জরি
ফিদেল চলে গেলেন, তুমি যাবে
যাব আমিও
যেন সমান্তরাল পৃথিবীর রেস থেকে
ছিটকে যাবে একেকটি নক্ষত্র।

Comments

comments

ইলিয়াস কমল

ইলিয়াস কমল

কবি। সিনেমাভাবুক। মুক্তগদ্যকার। মুখ্যত বাংলাদেশের সিনেমাজাগৃতি, সিনেমাভোক্তা, ছায়াছবির বাজারব্যবস্থায়ন ও ম্যুভিবিপণন নিয়ে লেখালেখি করা তাঁর আগ্রহের কেন্দ্র। পেশাজৈবনিক ক্ষেত্রটিও সম্প্রচারসংশ্লিষ্ট, তথা কাজ করেন টেলিভিশন মিডিয়ায়। ‘সিনেমাঘর’ নামে একটা আন্তর্জালিক পত্রিকা চালনা করেন। রয়েছে নিজের লেখাগুলোর সমাহারে ‘শিমুলপুর রোড’ শীর্ষক চলিষ্ণু অনলাইন আর্কাইভ। রয়েছে ‘অতিরিক্ত বাগানবাড়ি’ শিরোনামে একটা পাণ্ডুলিপি গোছানো, কবিতার, প্রকাশের অপেক্ষায়। ক্লিক্ করা যায় http://shimulpurroad.blogspot.com/ কিংবা https://cinemaghor.wordpress.com/ এবং লেখকের ব্যবহার্য ইমেইল eliauskomol@gmail.com

লেখকের অন্যান্য পোস্ট

লেখকের সোশাল লিংকস:
Facebook

Tags: ,

লেখকের অন্যান্য পোস্ট :

সাম্প্রতিক পোষ্ট

লেখকসূচি