বিড়ালপাখি । আহমদ সায়েম
সাম্প্রতিক

বিড়ালপাখি । আহমদ সায়েম

ভাঙা-ভাঙা শব্দে কথা বলে তনুশ্রী। বয়স আড়াই বা তিন হবে। তার পাকা পাকা কথায় মনে হবে বুড়ি একটা।

যত বায়না-আবদার বাবার সাথেই সব। মাকে ভয় পায় তেমন কিছু না, তবে বাবাকেই গুরুত্ব দেয় তনুশ্রী।

পিঠের ওপর ঘোড়া চড়া, ট্যাবে গেম খেলা, বিছানায় শুয়ে-শুয়ে রান্নাবাটি খেলা বা গল্প শোনা সবই বাবার সাথে। এমনই একদিন শুয়ে-শুয়ে বাবাকে প্রশ্ন :

তনুশ্রী — বাইরে জানালার দিকে তাকিয়ে – বাবা, বাতাস নড়তেছে কেন?
বাবা — গাছের পাতা মা!!
তনুশ্রী — গাছের পাতা নড়বে কেমন করে বাবা!? বাতাসের জন্য পাতা নড়তেছে।
বাবা — ও তাই তো, হ্যাঁ মা।
তনুশ্রী — তুমি কিচ্ছু বোঝ না, তুমি ‘টম’হয়ে যাচ্ছ বাবা।

বৃষ্টি হচ্ছে এমন সময় বাবার ঘরে ফেরা। তনুশ্রী — এদিকে আসো বাবা, এই দেখো – আমাকে তো খালি-খালি বকা দাও, আমি তোমার ঘরে, বারান্দায় সি (প্রস্রাব) করে দেই, এখন যে বৃষ্টি তোমার বারান্দায় সি করলো, তারে বকে দাও!!?

বাবা — মেয়েকে কোলে তুলে নিয়ে বল্লেন বৃষ্টি তো বোকা মেয়ে-একটা, তুমি তার মতো না কী, বৃষ্টির বুদ্ধি নাই, তার তো বাথরুমও নাই, তাই আমাদের বারান্দায় সি করেছে …।
তনুশ্রী — তাই বলে সবখানে বাবা! তুমিও তো ভিজে গেছ?
বাবা — ঐ যে বল্লাম, তার তো বুদ্ধি নাই। আচ্ছা, আমি বকে দেবো।
তনুশ্রী — বকে দিও, তা না হলে আমিও বৃষ্টি হব।
বাবা — না না মা, বৃষ্টির মতো তোমাকেও সবাই বোকা বলবে, কেউ আদক করবে না তখন।

ছুটির দিনে বাবার সাথেই বেড়ানো, আর তনুশ্রীর বেড়ানোর জন্য প্রিয় স্থান নানুর বাসা, বাবার ফুফুর বাসা। নাইকল দাদুর বাসায় যাব বলে একবার কান্না শুরু করে দিলে অন্য কোথাও যাবার সুযোগ নেই, আর না যাওয়া পর্যন্ত কান্নাও চলতে থাকবে।

ঘরে ঢুকতেই তনুশ্রীর চিৎকার বাবাআআআ — আমার পাখিটাকে পেয়ে গেছি বাবা। পাখিটা একা একাই বাসায় ফিরে আসছে।

জায়গাটার নাম রায়নগর, কিন্তু সে তা শর্টকাটে ‘নাইকলদাদুর বাসা’বলে চালিয়ে দেয়। এই শর্টকাটের নামটা তার নানুরও খুব প্রিয়। নাইকলদাদু বলা মাত্র নানু তাকে বাড়তি কিছু আদর করে দেন।

কিন্তু তনুশ্রী দাদুর এই আদর খাবার জন্য উনার বাসায় যায় না। সে নানুর নানান রকমের পাখি মোরগ-হাঁস ও বিড়ালের সাথে খেলা ও আদর দেয়ার জন্য যায়।

অদ্য শাদা ও সোনালি কালারের দুইটা বাচ্চা হয়েছে বিড়ালের, যা দেখে তনুশ্রী এবার বায়না ধরেছে ছানা দুইটার একটাকে সে বাসায় নিয়ে যাবে। আর তার বায়না মানে — সফলতার জন্য সে অটল, ফেরানো যাবে না কোনোভাবেই।

কান্নাকাটি ও জেদের উচ্চতাকে ম্যানেজ করতে বিড়ালের একটা বাচ্চাকে সাথে নিয়ে ফিরতে হলো বাসায়।

বিড়ালছানার নাম দিয়েছে ‘পাখি’। ঘরে তাকে যে নামে ডাকা হয়, তনুশ্রী সেই নামেই বিড়ালটাকে ডাকে।

— ‘আমার পাখিটা কই রে’ সারাদিন এই ডাকটা ঘরের দেয়ালে দেয়ালে উড়ে বেড়ায়, আগে ‘পাখি’ডাকটা শুধু তনুশ্রীর একার ছিল, এখন ডাকলে দুইজনই ছুটে আসে মায়ের কোলে, কখনো বাবার আদরের ছায়ায়।

নাওয়াখাওয়া বাদ দিয়ে তনুশ্রী এখন তার পাখিটাকে নিয়েই বেশি ব্যস্ত। কিন্তু বিড়ালটার ‘মন’ এখানে কোনোভাবেই টিকছে না। সারাদিন মেও-মেও শব্দে ঘর মাথায় তুলে রাখছে। কোনোভাবেই যেন তারে শান্ত করা যাচ্ছে না।

ছয়-সাত দিনের মাথায় ‘পাখি’টাকে ফেরত দেয়ার জন্য নাইকল দাদুর বাসায় যাওয়া হলো, বাচ্চাটা তার মা বিড়ালছানাটাকে পেয়ে নানান রকম খেলায় মেতে উঠল, এবং মায়ের আদরে আদরে অনেকটা সময় পার হয়। বিড়ালপাখি ও তনুশ্রীপাখি দুজনই এবার শান্ত।

তনুশ্রী নানুর সাথে নানান রকমের গল্প করছে : বোকা বৃষ্টিটা কীভাবে তাদের ঘরে আসলো, তাদের বারান্দায় সি দিলো আর বাবাকেরও ভিজিয়ে দিলো। বাবা শেষে বকে দিয়েছে। নানু তার সাথে বেশি কিছু বলার নেই, সায় দেয়া ছাড়া। নানু জানো — বৃষ্টির না কোনো বাথরুম নেই, বলে মুখ চেপে তনুশ্রীর হাসি।

— ঘণ্টা দুয়েক পরে বাসায় ফিরা হবে কিন্তু এখন আর বিড়ালপাখিটারে পাওয়া যাচ্ছে না। বিড়াল ও তার অন্য ছানাটা ঠিকই খেলতেছে বা এঘর ওঘর করতেছে কিন্তু তনুশ্রীর ‘পাখি’টাকে কোনোভাবেই পাওয়া যাচ্ছে না। নানান রকম চিন্তা সবার মাথায়, এভাবে হারিয়ে যাবার কোনো কারণ নেই, সবাই অবাক হচ্ছেন মা বিড়ালের চরিত্র দেখে, দুইটা বাচ্চার একটা মিসিং এই নিয়ে তার মধ্যে কোনো ভিন্নতা দেখা যাচ্ছে না। দিব্যি আছে।

খোঁজাখুঁজিতে কোনো ভালো ফলাফল না থাকায়, তনুশ্রীর কান্নাকাটি ম্যানেজ করে নিজ বাসার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়া হলো।

রাস্তায় তনুশ্রীর নানান ভাবনা ও বাবাকে নানান প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয় — পাখিটাকে কি কেউ কিডন্যাপ করল? না কি কেউ লুকিয়ে ফেলল বাবা?

বাবা — পাখিটা কি আসতে চাইল না! নিজে-নিজেই লুকিয়ে গেল? — ও বাবা পাখিটারে তো কেউ মারে নাই? তাই না বাবা?

তার বাবা এইসব আবেগ-ঘন প্রশ্নের বিশেষ কোনো উত্তর দিতে পারে না, বাসায় ফিরা হলো। তনুশ্রী তার ঘরে হেলেদুলে রওয়ানা হলো।

ঘরে ঢুকতেই তনুশ্রীর চিৎকার বাবাআআআ — আমার পাখিটাকে পেয়ে গেছি বাবা। পাখিটা একা একাই বাসায় ফিরে আসছে।

পাখিটাকে পাখির কোলে দেখে তার বাবার চোখও ছানাবড়া।

Comments

comments

আহমদ সায়েম

আহমদ সায়েম

‘সূনৃত’ লিটলম্যাগাজিনটা সম্পাদনা করি ২০০০ সাল থেকে । এখন পর্যন্ত আটটি সংখ্যা বের হয়েছে । জন্ম সিলেটে ০৫ জানুয়ারি ১৯৭৮ । স্কুলের খাতায় নাম ছিল সায়েম আহমদ চৌধুরী । কবিতার বই বেরিয়েছে ২০১৫ ফেব্রুয়ারিতে ‘অনক্ষর ইশারার ঘোর’ এই নামে ।

লেখকের অন্যান্য পোস্ট

লেখকের সোশাল লিংকস:
FacebookLinkedInGoogle Plus

Tags: ,

লেখকের অন্যান্য পোস্ট :

সাম্প্রতিক পোষ্ট

লেখকসূচি