সাম্প্রতিক

আর্ট অফ ফিকশন : নৈঃশব্দ্যের সংলাপ । রুমা মোদক

মাঝে মাঝে নিজেকে নিজে প্রশ্ন করি কেনো লিখি?কজন পাঠকের কাছে পৌঁছাতে পারি?জীবদ্দশায় উপভোগ্য জনপ্রিয়তা নেই, মৃত্যুর পর মূল্যায়ন নিশ্চিত নয়।তবু কেনো লিখি! আবদ্ধ কূয়োয়

নিজেকে খুঁড়ে খুঁড়ে পৌঁছে যাই বিশ্বের মহৎ লেখকদের কাছে।ইতালো কালভিনো যখন বলেন, নিজেকে মোকাবেলা করতে হবে,তা করতে গিয়ে এমন কিছু খুঁজে বের করতে হবে যা একেবারে নতুন,অভিনব”-ক্লান্ত হবার অবকাশ আমার আড়মোড়া ভাঙে।

কিংবা গুন্টার গ্রাস যখন বলেন, লেখায় আসলে কী হয়,ক্ষুদ্র অংশ মিলে একটি সমগ্র তৈরি হয় ঠিক যেভাবে পাথর খোদাই করতে করতে পূর্ণতা পায় একটি সম্পূর্ণ   ভাস্কর্য” আমি ভীষণ ভাবে আবিষ্কার করি লেখক জীবনের অপূর্ণতা,এক সমগ্রের সন্ধানে আমার অসম্পূর্ণ, অতৃপ্ত যাত্রা এই লেখা,লিখতে থাকা। অর্থ নয়, বিত্ত নয়,এক বিপন্ন বিস্ময় তাড়িত ভুবনে ঘুরপাক। 

এলিস মুনরো, সালমান রুশদী, ঝুম্পা লাহিড়ী, ইতালো কালভিনো,ওরমান পামুক, কাজুও ইশিগুড়ো প্রমুখ লেখকদের লেখালেখির ভাঁজে ভাঁজে আলো ফেলে প্যারিস রিভিউ  উন্মোচিত করেছেন তাঁদের অন্তর্জগত। তার অনেক কয়টি বাংলায় অনুবাদ করেছেন কথাশিল্পী এমদাদ রহমান।  

প্রকাশ করেছে  জলধি, প্রচ্ছদ করেছেন তাইফ আদনান। 

হতে চাওয়া,হয়ে উঠা,কিংবা খ্যাতির শিখরে থাকা লেখকদের অবশ্য পাঠ্য এক বই “নৈঃশব্দের সংলাপ”। পাওয়া যাচ্ছে রকমারি, নির্বাচিত,কবিতা ক্যাফে সহ অনলাইন অফলাইনের সব বই বিক্রয় কেন্দ্রে।

Comments

comments

রুমা মোদক

রুমা মোদক

জন্ম: হবিগঞ্জ। জেলা শহর থেকে প্রকাশিত সংকলনগুলোতে লেখালেখির মাধ্যমেই হাতেখড়ি। শুরুটা আরো অনেকের মতোই কবিতা দিয়ে। ২০০০ সালে প্রকাশিত হয় কাব্যগ্রন্থ ‘নির্বিশঙ্ক অভিলাষ’। এরপর ধীরে ধীরে জড়িয়ে পড়েন মঞ্চনাটকে। রচনা করেন কমলাবতীর পালা, বিভাজন, জ্যোতি সংহিতা ইত্যাদি মঞ্চসফল নাটক। অভিনয়ও করেন। মঞ্চে নাটক রচনার পাশাপাশি নিরব অন্তঃসলিলা স্রোতের মতো বহমান থেকেছে গল্প লেখার ধারাটি। জীবন ও জগতকে দেখা ও দেখানোর বহুস্তরা এবং বহুমাত্রিক অভিজ্ঞতার উৎসারণ ঘটেছে ২০১৫ সালের বইমেলায় প্রকাশিত ছোটগল্প সংকলন ‘ব্যবচ্ছেদের গল্পগুলি’তে। ‘প্রসঙ্গটি বিব্রতকর’ প্রন্থভুক্ত গল্পগুলোতে সে দেখার দৃষ্টিভঙ্গি হয়ে উঠেছে আরও নির্মোহ, একবগগা, খরখরে কিন্তু অতলস্পর্শী ও মমতাস্নিগ্ধ। গল্প লেখার স্বীকৃতিস্বরূপ ইতোমধ্যে পেয়েছেন বৈশাখী টেলিভিশনের পক্ষ থেকে সেরা গল্পকারের পুরস্কার, ফেয়ার এন্ড লাভলী সেরা ভালোবাসার গল্প পুরস্কার। ২০১৪ সাথে মঞ্চনাটকে অবদানের জন্য পেয়েছেন ‘তনুশ্রী পদক’। বর্তমানে সক্রিয় রয়েছেন বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের পত্র-পত্রিকা, লিটলম্যাগ এবং বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে প্রকাশিত অন্তর্জাল সাহিত্য পোর্টালে লেখালেখিতে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে এম. এ সম্পন্ন করে শিক্ষকতা পেশায় জড়িত রয়েছেন। ব্যক্তিগত জীবনে স্বামী অনিরুদ্ধ কুমার ধর ও যমজ সন্তান অদ্বিতীয়া অভীন্সা পদ্য ও অদ্বৈত অভিপ্রায় কাব্যকে নিয়ে হবিগঞ্জে বসবাস করছেন।

লেখকের অন্যান্য পোস্ট

লেখকের সোশাল লিংকস:
Facebook

Tags: ,

লেখকের অন্যান্য পোস্ট :

সাম্প্রতিক পোষ্ট

লেখকসূচি